বর্ষাকালের ১০ টি বাঙালি খাবার

বর্ষাকালের ১০ টি বাঙালি খাবার
Spread the love

মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে কলকাতায় বর্ষা শুরু হয় । আর বর্ষার মরশুমে কলকাতা যেন নতুন রূপ নেয়। এখানকার মানুষের মনেও আসে পরিবর্তন , আর সেই পরিবর্তনের আঁচ লাগে রান্নাঘরে। নতুন নতুন পদে রান্না করা হয় সুস্বাদু খাবার। বরষার হিমেল পরশে সেই খাবারে যেন অমৃতের স্বাদ। 

মুগ ডালের খিচুড়ি

মুগ ডালের খিচুড়ি:

রিমঝিম বৃষ্টির মধ্যে বাঙালির মন ঝিমিয়ে পড়ে। কাজে যেতে তার আর মন চায় না। মনোহরিনী কোন রূপবতীর স্বপ্নে বিভোর হতে চায় বাঙালির মন। হালকা হিমেল হাওয়ার পরশে এক স্বর্গীয় অনুভুতি তৈরি হয়। পরিবেশের এই পরিবর্তনে বাঙালির খাবারেও আসে পরিবর্তন। মুগ ডালের সুস্বাদু খিচুড়ির স্বাদ বাঙালির অনুভূতিকে আরও চাঙ্গা করে তোলে। 

সরশে ইলিশ

সরশে ইলিশ :

বাঙালির পাতে বর্ষাকালে ইলিশ না পড়লে যেন নিরামীষ ভোজন হয়। বাঙালির ঐতিহ্যবাহী খাবারের মধ্যে এটি একটি। স্বাদে গন্ধে অতুলনীয় এই মাছের তৈরি ঝোল , ঝাল পুরো বাঙালির মন মাতিয়েছে বহুকাল আগেই। তখন থেকেই একটা আদিম ভোজনস্পৃহা বাঙালির মনে বিরাজমান। ইলিশ মাছ ভাজা, ঝোল অথবা ঝাল যাই হোক না কেন , এই মাছের রেসিপি আপনাকে মুগ্ধ করবেই। 

বেগুন ভাজা

বেগুন ভাজা:

বর্ষার মরসুমে একটা সবজি হল বেগুন। এটা সহজলভ্য এবং কম দাম। পকোড়া তৈরিতে এই সবজি ব্যবহার করা হয়। সন্ধের টিফিনের মুখরোচক খাবার এটি। বেসন দিয়ে বেগুনের স্লাইস মাখিয়ে গরম তেলে ভাজা হয়। একটু বিট নুন ছিটিয়ে গরম গরম পরিবেশন করা হয়। অনুষ্ঠানে ডালের সঙ্গে এনার বিশেষ বন্ধুত্ব আছে। 

ঝালমুড়ি আর আলুচপ

ঝালমুড়ি আর আলুচপ:

যদি বরষার মরশুমে কলকাতায় আসেন তাহলে আপনি ঝালমুড়ির স্বাদে বঞ্চিত হবেন না। প্রায় সমস্ত জায়গায় এই অদ্ভুত জিভে জল আনা উপাদেয় খাবার এর সন্ধান পাবেন। মুড়ির সঙ্গে বিভিন্ন মশলা মিশিয়ে তৈরি হয় ঝালমুড়ি আর আলুর সাথে বেসন দিয়ে তৈরি করা হয় আলুচপ। বিকেলের আড্ডায় ছেলে ছোকরাদের  এটা পছন্দের খাবার। 

চিড়ের পোলাও

চিড়ের পোলাও:

একটু অবাক হবারই কথা! চিড়ে দিয়ে আবার পোলাও হয় নাকি! আশ্চর্য হলেও সত্যি যে চিড়ের পোলাও একটি উপাদেয় বাঙালি খাবার । চিড়ে ভিজিয়ে নিয়ে কাজু বাদাম , কিসমিস, বাদাম, দুধ, ঘি, চিনি, হলুদ, লঙ্কা দিয়ে তৈরি করা হয় এই সুস্বাদু খাবার। ছোট বাচ্চাদের টিফিনের জন্য এটি উপাদেয় এবং পুষ্টিকর একটি খাবার। 

সিঙ্গাড়া

সিঙ্গাড়া:

ঐতিহ্যবাহী এই সিঙ্গাড়া নিয়ে অনেক গল্পই বাঙালির ঘরে ঘরে প্রচলিত আছে। এটা ঘরোয়া রেসিপি। তবে রাস্তার পাশের দোকানে এটি বেশি পাওয়া যায়। আর সুস্বাদু এই খাবারটি চাটনির সঙ্গে পরিবেশন করা হয়। গল্পের আসর কিংবা আড্ডায় এর জুড়ি মেলা ভার। বয়স্ক থেকে বাচ্চা  , সকলের কাছেই জনপ্রিয় একটি খাবার হলো এই তিন কোনা বিশিষ্ট সিঙ্গাড়া। 

পাপড়

পাপড়:

অনুষ্ঠানে শেষপাতে পাপড় না পড়লে যেন ভোজন অসম্পূর্ণ থেকে যায়। কড়কড়ে শক্ত এই খাবারটি বাঙালির প্রিয় খাবারের মধ্যে অন্যতম। 

লুচি আলুর দম

লুচি আলুর দম:

নিরামীষ জনপ্রিয় একটি খাবার হলো এই লুচি আলুর দম। বরষার মরশুমে এ যেন বিরিয়ানিকেও হার মানায়। 

Also Read- Aloo Posto Recipe In Bengali

চিংড়ি মাছের মালইকারী

চিংড়ি মাছের মালইকারী:

নারকেলের দুধ দিয়ে তৈরি এই চিংড়ি মাছের মালইকারী একটা উপাদেয় বাঙালি খাবার। অনুষ্ঠানে এই খাবারটি তার স্বমহিমায় আজও বিরাজমান। 

 চিকেন রোল

এগ চিকেন রোল:

কলকাতার প্রায় প্রতিটি রাস্তার পাশে ছোট ছোট দোকানে বিক্রি হয় এই জিভে জল আনা উপাদেয় এগ চিকেন রোল। ডিম আর মাংস দিয়ে বিশেষ উপায়ে এটি তৈরি করা হয়। 

ঋতুর এই বিচিত্রতা বাঙালির খাবারে এনেছে নানাবিধ পরিবর্তন। বদলেছে চাহিদা , সেই চাহিদা মেটাতে বাঙালির প্রতি ঋতুতেই স্বাদবদলের এই আদিম ইচ্ছেতেই নতুন নতুন খাবারের পদ তৈরি হয়েছে। আপনার পছন্দের খাবার কমেন্টস করে জানান। আমরা আপনার পছন্দের খাবারের ইতিহাস আপনাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করবো। 


Spread the love

Leave a Comment

Your email address will not be published.